approval in adsense
approval in adsense

Approval in AdSense অনেকেরি কাছে এটি পাওয়া পানি ভাত আবার অনেকে নাম শুনলেই ভয় পায়। চলুন জেনে নেই 13 Easy steps to approve google AdSense account.

Table of Contents



Approval In AdSense 


ব্লগিং করছেন করতে থকবেন এমন অনেক মানুষ আছে যারা ব্লগিং শুরু করে প্রথম এক মাস দুই মাস লিখে তারপরে আর যখন ভালো লাগে না তখন কপি পেস্ট করা শুরু করে কিন্তু এখনকার এই সময়ে কোন ছবি বা কোন কন্টেন্ট কপি করলে আপনি যখন তা গুগল সার্চ কনসোলে ইন্ডেক্স করতে যাবেন তা ইন্ডেক্স কিন্তু হবে,

কিন্তু আপনার মত আপনি যদি কপি করে থাকেন তাহলে যার থেকে কপি করলেন সেও কিন্তু গুগল এ তার কন্টেন্টটি ইন্ডেক্স করেছে তারপর কি হবে দুই কন্টেন্ট সেইম হয়ে যাবে আর আপনার কপি করা কন্টেন্টটি গুগল এ কখনো রাঙ্ক পাবে না এখন কার যেই এলগরিদম গুগল এর অনেক এডভান্স অনেক আপডেটেড তার ফলে আপনাকে ১০০% উনিক কন্টেন্ট লিখতে হবে নিজের ইডিট করা ছবি অবশ্যই ব্যাবহার করতে হবে ।


গুগল এখন নতুন কিছু চায় ভালো উন্নত কিছু চায় যা আপনি আপনার ব্লগের এর মাধ্যমে শেয়ার করলে তা গুগল তার প্রথম পেইজে এ দেখাতে বাধ্য এর জন্য অনেক অনেক  উপায় আছে কিছু সাময়িক আছে কিছু আছে যা আপনাকে সব সময় করে যেতে হবে আর হ্যাঁ আপনার ওই ফার্স্ট রাঙ্ক কিন্তু শুধু আপনার জন্যই না হতে পারে আপনি ১০ মিনিট পড়ে দেখবেন আপনার উপরে অন্য একজন চলে এসেছে তা সেই বিষয়ে না যাই আমরা ছিলাম গুগল এডসেন্স এ তো চলুন ছোট একটা বর্ণনা শুনে আসি

 

Google AdSense

অ্যাডসেন্স এমন একটি প্লাটফর্ম যা সমস্ত ব্লগার এবং ইউটিউবারকে অনলাইনে অরথ উপার্জনের সুযোগ দেয় আর সমস্ত বিজ্ঞাপনদাতা তাদের পণ্য অ্যাডসেন্সে এবং গুগল অ্যাডসেন্স তাদের সেই পণ্যগুলো আমাদের ব্লগ সাইট বা ইউটিউব ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেয়  ।অথবা সরাসরি ভাষায় আপনি বলতে পারেন যে সংস্থাটি আমাদের ব্লগ বা ইউটিউব ভিডিওতে গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে তার পণ্যটির প্রচার করে । বিনিময়ে তিনি কোম্পানির গুগল এডসেন্স বেশিরভাগই টাকা দেয় গুগল এডসেন্স বেশিরভাগই আমাদের টাকা দেয়।



HOW TO Approved Google AdSense Account

 

অনেকেই জানেন না তাদের সাইটে তারা কেন অ্যাডসেন্স এর অনুমোদন পান না এইরকম অনেক কারন আছে আমি আপনাদের আজ ১৩ টি কারন সম্পর্কে ভালো মত বলবো যাতে কেউ আর সেইসব ভুল না করে এইভাবে আপনি ব্লগিং করলে আপনি খুব সহজে এবং খুব তাড়াতাড়ি অনুমোদন পেয়ে যাবেন ।

 

১ নম্বর . আপনাকে প্রতিদিন আপনার ব্লগ আপডেট করতে হবে

আপনি যদি নতুন একটি ওয়েবসাইট ওপেন করেন এবং সেখানে ২-৩ দিন পর পর পোস্ট করেন করে ২০ টা পোস্ট বানান এবং অ্যাডসেন্স এ এপ্লাই করেন তাহলে কখনো আপরুভাল পাবেন না পাওয়ার চান্স ২০%,

কিন্তু আপনি সিউর অ্যাডসেন্স পেতে চাইলে আপনাকে প্রতিদিন আপনার ব্লগে পোস্ট করে যেতে হবে কোন একদিন ও বাদ দেওয়া যাবে না এবং প্রত্যেকদিন সেইম সময়ে পোস্ট করতে হবে,

যেমন আজকে যদি সকাল ১০ টায় পোস্ট করেন তাহলে এর পরের তার পরের দিন সবস্ময় ১০ টা বাজেই পোস্ট করে যেতে হবে তাহলে খুব সহজে ৩-৪ দিন এ আপনি অ্যাডসেন্স আপ্রুভাল পেয়ে যাবেন




২ নম্বর . গুগল এর যে অন্য প্লাটফর্ম আছে এনালাইটিক্স, ট্যাগ ম্যানেজার, সার্চ কনসোল

এগুলোতে আপনার ব্লগ সাইটকে আবশই সাবমিট করবেন তা না হলে আপনি অ্যাডসেন্সের অনুমোদন পাবেন না এবং এই সাইটগুলো গুগল তৈরি করেছে যাতে আপনি কোন পেইড টুলস না ব্যাবহার করা ছাড়া আপনার সাইটের সব গতিবিধ বুঝতে পারেন এবং সেই ভাবে আপনি আপনার সাইটকে ঠিক করতে পারেন সুতরাং অ্যাডসেন্সের অনুমোদন এর জন্য এই গুলো অবশ্যই জরুরী।

 

৩ নম্বর . আপনাকে SEO Friendly Template ব্যাবহার করতে হবে

অ্যাডসেন্স এর অনুমোদন পেতে আপনার সাইটে সঠিক SEO করা থাকতে হবে এর জন্য অবশ্যই আপনার সাইটকে SEO Friendly করে নিতে হবে  এতে করে আপনার সাইট রাঙ্ক করবে এবং অ্যাড সেইন্সের এর জন্য আপনি অনুমোদন পাবেন কারন আপনার সাইটে যদি কোন ভিসিটর না থাকে অবশ্যই অ্যাডসেন্স আপনাকে অনুমোদন দিবে না ।

 

৪ নম্বর . মোবাইল বান্ধব থিমটি ব্যবহার করুন




আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যে আপনি যেই টেম্পলেট ব্যাবহার করেন সেটি শুধু কম্পিউটার এর ভিউতে সুন্দর হলে হবে না সেটিকে আপনি যেমন করে পিসি এর জন্য সাজাবেন সেটিতে সেই অপশন থাকতে হবে সেটি মোবাইল এই ও সেইম ভাবে দেখা যাবে তা না হলে অ্যাডসেন্স আপনাকে অনুমোদন দিবে না ।

 

৫ নম্বর . আপনার মেনু বার এ অবশ্যই সার্চ অপশন থাকতে হবে

সার্চ অপশন আপনার ব্লগেসার্চ এর কাজ করে আপনি কোন একটা ব্লগ লিখেছেন কোন একজন পাঠক আপনার ব্লগ খুজতে আসলো এবং সে আপনার এত কন্টেন্ট এর মাঝে তার কাঙ্খিত কন্টেন্টটি পেল না তাই আপনাকে সার্চ অপশন আপনার ব্লগে থাকা অবশ্যই জরুরী । 

 

৬ নম্বর . সাইডবারে Archive উইজেট থাকতে হবে

আপনি ব্লগ খুলেছেন ১ বছর হয়ে যাচ্ছে আপনার ব্লগে পোস্ট আছে প্রত্যেক মাসে ২০টি করে তাহলে আপনার ব্লগে ১ বছরে পোস্ট হবে ২৪০টা তো কোন পাঠক যদি আপনার ব্লগে আসে এবং আপনার প্রথম দিকের পোস্ট পড়তে যায় সে কি আস্তে আস্তে সব পোস্ট পার করে তার পর যাবে না । এর জন্য আপনাকে অবশ্যই হোম পেইজ এর সাইড বারে Archive উইজেট রাখতে হবে ।

 

৭ নম্বর . আপনার ব্লগে সাধারণ কয়েকটি পেইজ অবশ্যই রাখতে হবে




আপনার ব্লগ সম্পর্কে About page, এরপর Terms & Conditions page, Privacy Policy page , Contact us page , Disclaimer page  এই পেইজ গুলো আপনাকে অবশ্যই অবশ্যই রাখতে হবে তা না হলে অ্যাডসেন্স আপনাকে আপনার ব্লগকে অনুমোদন দিবে না ।

 

৮ নম্বর .মেনুবার অপশন রাখতে হবেই

আপনাকে অবশ্যই আপনার ব্লগে মেনু বার রাখতে হবে যাকে আমরা মেগা মেনু বলতে পারি । আপনি যা লিখছেন  যা নিয়ে লিখছেন আপনার নিছ যা নিয়ে তা অবশ্যই আপনাকে আপনার মেগা মেনুতে রাখতে হবে । এটিকে গুগল অ্যাডসেন্স অবশ্যই দেখে এটা না থাকলে আপনি কখনো অনুমোদন পাবে না ।

 

৯ নম্বর . মেনু বারে হোম বোতাম রাখতে হবে

আপনি মেগা মেনু রাখলে পাঠক অবশ্যই যাবে আপনার সেই সব লেবেল করা পেইজ গুলো তে কিন্তু যাওয়ার পর তারা আপনার হোম পেইজ আস্তে কিভাবে আসবে আবার ব্যাক করে করে না এটি হলে অ্যাডসেন্স আপনাকে অনুমোদন দিবে না তাই খেয়াল রাখতে হবে সব সময় হোম বোতাম মেগা মেনুতে রাখতে হবে । 

১০ নম্বর. আপনার কন্টেন্ট অবশ্যই ইউনিক হতে হবে




আপনি যা লিখবেন তা অবশ্যই নতুন হতে হবে আপনি কারো থেকে কপ করলে কিন্তু তার জন্য আপনি অনুমোদন কখন পাবেন না । গুগল এখন চায় ১০০% নতুন ইউনিক কন্টেন্ট তার জন্য আপনাকে অবশ্যই নিজের কন্টেন্ট নিজে লিখতে হবে আপনি কারো থেকে কপ করলে কখনো অ্যাডসেন্স এর অনুমোদন পাবেন না ।

 

১১ নম্বর .  আপনার কন্টেন্ট এর ৫০০ ওয়ার্ড এর অধিক হতে হবে

আপনার কন্টেন্ট এর সাইজ বড় হতে হবে ৫০০ ওয়ার্ড এর ছোট  কন্টেন্ট কখনো অ্যাডসেন্স অনুমোদন দেয় না তাই আপনি যখন ই পোস্ট করবেন তা আপনার খেয়াল রেখে লিখতে ৫০০ ওয়ার্ড থেকে যত বড় লিখতে পারেন তত ভালো ।

১২ নম্বর. আপনাকে অবশ্যই একটি ডোমেন এর অধিকারী হতে হবে

আপনি ব্লগার এ ব্লগ করলে আপনাকে ডোমেন এর প্রয়োজন হয় না প্রথমে কিন্তু আপনি যদি ব্লগে ১ মাসের মধ্যে অনুমোদন চান  তাহলে আপনাকে ডোমেন কিনতে হবে আর যদি চান না টাইম নিবেন তা হলে আপনাকে নেওয়া লাগবে না কারন অ্যাডসেন্স ব্লগস্পট এ অনুমোদন দেয় কিন্তু এতে আপনার ৬ মাস টাইম লাগবে ।
 

১৩  নম্বর. আপনার ব্লগে কমপক্ষে ২০-২৫টি পোস্ট থাকতেই  হবে 



আপনি নতুন ব্লগ খুললে আপনাকে কমপক্ষে ২০ টা কন্টেন্ট লিখে তার পরে অ্যাডসেন্সে এর জন্য এপ্লাই করতে হবে । এছাড়া আপনি অ্যাডসেন্সের এর অনুমোদন পাবেন না ।

তো আমি আজকে আপনাদের বিশেষ যেই পয়েন্ট গুলো আপনাকে অ্যাড সেন্সের এর অনুমোদন পেতে লাগবেই লাগবে তা আমি উপরে সব বলেছি আশা করি তা আপনাদের সাহায্য করবে । আপনাকে সব গুলো পয়েন্ট নিয়ে কাজ করতে হবে এর প আপনি যদি গুগল এর অ্যাডসেন্সের জন্য এপ্লাই করেন তাহলে খুব সহজে অনুমোদন পেয়ে যাবেন ।

পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

আর আমদের সামনের পোস্টগুলো পড়ার জন্য আমাদের ব্লগে সাবক্রাইব করে রাখুন ধন্যবাদ সকলকে ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here